ফিরে দেখা আমার প্রিয় গণিত বিভাগ কে- ড.গৌতম সাহা

ক্যাম্পাস সম্পাদকীয়

ড.গৌতম সাহাঃ

ঢাকা মেডিকেলের ঠিক উল্টোদিকে একটা লাল বিল্ডিং দাঁড়িয়ে আছে । ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্টা লগ্ন থেকে যার যাত্রা শুরু হয়েছিল কাজী মোতাহের হোসেন ভবন থেকে, আজ তা পরিবর্তনের মধ্যে দিয়ে গিয়ে গণিত ভবন নামে পরিচিত । ভবনটা আছে, ছাত্র-ছাত্রীদের কোলাহলও আছে কিন্তু আমরা নেই । আমরা তো অতীত আজ । সেখানে একসময় আমাদের কফি হাউসের আড্ডা ছিল, ছিল হটাৎ কিছু বিষয় নিয়ে চায়ের কাপে ঝড়, কখনো সময় কেটেছে জীবননান্দের বনলতা সেন কিংবা সুরঞ্জনা কে নিয়ে, কখনো সুনীলের বরুনাকে নিয়ে কেটে গেছে সময় । কখনো সময় কাটতো হুমায়ুন আজাদ আর তসলিমা নাসরিন এর নিষিদ্ধ কিছু বই নিয়ে তর্ক করে, কখনো কথা হতো হুমায়ূন আহমেদের মিসির আলী কিংবা হিমু নিয়ে ।

সন্ধ্যার পর ক্যাম্পাস এ আড্ডা, দেখছি টিএসএসিতে অজস্র তরুন-তরুনী’র কোলাহল । মামাদের কাছে ঝালমুড়ি, ফুসকা, চা চেয়ে আড্ডা । দূর থেকে অপরাজেয় বাংলাকে দেখতাম, কত স্বপ্নের রং ছিল দুচোখে । একুশে ফেব্রুয়ারীতে মাতৃভাষা দিবস, পহেলা বৈশাখে মেলা, পুজোতে জগন্নাথ হলে সবাই মিলে আনন্দ, কত রঙিনই না ছিল সেসব দিনগুলি । ছাত্ররা তাদের কত শত দাবিতে মিছিল করতো, আজ আর কিছুই শুনা হয়না । লালনের আখড়ায় বসে শুনেছি কত বাউল গান, আজ আর সময় নেই । একেছি কত ছবি, লিখেছি কত গল্প আর কবিতা, শুনিয়েছি কত গান, আজ সেই গান আছে কিন্তু আমি নেই ।

আজ হারিয়ে গেছে সময়ের স্রোতে আমাদের অনেক প্রিয় কিছু শিক্ষক । আজ আমরা বড় হয়েছি । নতুন প্রজন্ম আমাদের জায়গা নিয়েছে । আজ যখন শাহবাগ থেকে পায়ে হেটে গণিত বিভাগে আসি, ফিরে পাই সেই পুরোনো অনুভূতি । গণিত চত্বরে দাঁড়িয়ে ফিরে যাই পুরোনো দিন গুলিতে । নতুন কিছু মুখ, তাদের চোখে নতুন কিছু স্বপ্ন । হুম, আজ আমরা নেই কিন্তু আমাদের প্রিয় গণিত ভবনটি আছে । আজ আমি আমার ছেলেকে বলি, দেখো, একদিন এখান থেকেই তোমার বাবা স্বপ্নের বীজ বুনেছিল । ছেলের হাত ধরে বাইরে বেরিয়ে আসি, রাস্তায় দাঁড়িয়ে চলে যাবার পথ খুঁজছি, আর দেখছি নতুন প্রজন্মকে । আরেকটি সকাল,আরো কিছু স্বপ্নের হাতছানি । ভালো থেকো প্রিয় গণিত ভবন ।

ড. গৌতম সাহা,
সহযোগী অধ্যাপক,
গণিত বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.