চুয়াডাঙ্গার দর্শনার থানার অফিসার ইনচার্জ মাহবুবুর রহমান কাজল এবার হকস্টিক, লাঠি দিয়ে পিটিয়ে ৪ সাংবাদিক কে যখম, দর্শনা থানার ওসিসহ দোষী পুলিশদের শাস্তির দাবী সাংবাদিক নেতৃবৃন্দর

দেশজুড়ে

আলমগীর রহমান, দর্শনা থেকেঃ

সারা বিশ্ব কাপছে ভয়ংকর করোনা ভাইরাসের সংক্রমণে কেড়ে নিয়েছে হাজার মানুষের প্রাণ। তারপরও বসে নেই সাংবাদিক নিজেদের জীবন ঝুকিতে নিয়েও সংবাদ প্রচার এর জন্য কাজ করে যাচ্ছে।

তারই পেক্ষিতে গত ৮ এপ্রিল সকাল ১১ টার সময় দর্শনায় করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সরকারের দেওয়া নির্দেশনা সাধারন মানুষ কতটুকু মেনে চলছে সেই সংবাদ সংগ্রহ করেছিল কয়েকজন সাংবাদিক।

এ সময় দর্শনা থানার ওসি সহ বেশ কয়েকজন সদস্য উল্টো সাংবাদিকরা অযথা ঘোরাফেরার অভিযোগ তুলে সন্ত্রাসী হামলা চালায়। হকস্টিক,লাঠি দিয়ে ৩ সাংবাদিক কে যখম করে।

এ সময় তারা সাংবাদিকের পরিচয় ও পরিচয় পত্র প্রদর্শন করলেও তারা কোন কথা শোনেনি। বরং বাজে ভাষায় গালিগালাজ করে পুলিশ।

বিষয়টি সকল সাংবাদিকদের মধ্যে ছড়িয়ে পড়লে এ ঘটনার প্রতিবাদে দর্শনা প্রেসক্লাবের সভাপতি মনিরুজ্জামান ধীরু সাধারন সম্পাদক আওয়াল হোসেন ও এশিয়ান জার্নালিষ্ট হিউম্যান রাইটস এ্যান্ড কালচারাল ফাউন্ডেশন এজাহিকাফ এর প্রেসিডিয়াম মেম্বার ও স্বাধীনদেশ টিভির চেয়ারম্যান ইয়াসির আরাফাত মিলন বলেন লকডাউন এ কারা মাঠ পর্যায়ে কাজ করতে পারবে এই নিয়োম ফলো করছেন না দর্শনা থানার অফিসার ইনচার্জ মাহবুবুর রহমান কাজল, দর্শনা প্রেসক্লাবে ঐ দিন বিকাল ৫ টায় জরুরি মিটিং করে। মিটিং এ সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ ৩ সাংবাদিকের উপর হামলার তীব্র নিন্দা জানান।

এ দিকে দর্শনা থানা ওসি( তদন্ত) শেখ মাহাবুব রহমান ও দর্শনা পৌর মেয়র মতিয়ার রহমান বিষয়টি নিয়ে বৃহস্পতিবার সাংবাদিক নেতৃবৃন্দের সাথে বসে বিষয়টি সমধান দেওয়ার আশ্বাস দেন।

এ দিকে ঘটনার দুই দিন অতিবাহিত হলেও পুলিশের পক্ষ থেকে কোন সাড়া পাওয়া যায় নি।

শুক্রবার ১০ এপ্রির থেকে ৪ সাংবাদিকের ওপর হামলার প্রতিবাদে দর্শনা থানা-পুলিশের সকল সংবাদ বর্জন করেছে দর্শনার কর্মরত সকল প্রিন্ট ইলেকট্রনিক ও অনলাইন সাংবাদিকরা। একই সাথে ঘটনার দিন দোষি পুলিশ সদস্যর শাস্তির দাবি জানিয়েছে দর্শনা প্রেসক্লাবের সাংবাদিকরা।

এ বিষয়ে প্রেসক্লাবের সভাপতি সাধারন সম্পাদক বলেন দর্শনা থানার ওসি মাহাবুব রহমানের উপস্থিত থেকে সকল সাংবাদিকদের কলম থেমে থাকবে না।

এ বিষয়ে চুয়াডাঙ্গা পুলিশ সুপার জাহিদুল ইসলামকে মৌখিক ভাবে জানালে তিনি লিখিত অভিযোগ করার কথা বলেন। দর্শনা প্রেসক্লাবের নেতৃবিন্দ ইতিমধ্যে চুয়াডাঙ্গা পুলিশ সুপার বরবর লিখিত অভিযোগ করে ইন্সপেক্টর জেনারেল অব পুলিশ মহদয়কে অবহিত করার সিগ্ধান্ত নিয়েছেন।

হৃদয়/এমবিটি

Tagged

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.