আইন মানতে বদ্ধপরিকর বঙ্গবন্ধুর সৈনিক তারেক আজিজ,স্বেচ্ছায় হোম-কোরেন্টাইনে অবস্থান

কোরোনা ভাইরাস দেশজুড়ে

নিজস্ব প্রতিনিধি,মুক্ত বাংলা টিভিঃ

বর্তমান বিশ্বে সবচেয়ে ভয়ানক যে ভাইরাসটি সেটি হলো করোনা ভাইরাস।
প্রায় বিশ্বের সকল দেশেই একের পর এক হানা দিয়েছে এই মরণব্যাধি ভাইরাস এমনকি ছাড় পায়নি এশিয়া মহাদেশের ছোট্ট একটি দেশ সোনার বাংলাদেশ।।
কোভিড-19 বাংলাদেশে হানা দেওয়ার সাথে সাথেই বাংলাদেশ সরকার মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা হাতে নেয় নানা উদ্যোগ ও সচেতনতামূলক ব্যবস্থা।
বিদেশ ফেরত প্রবাসীদের করোন্টাইনে রাখা,সর্তকতা সৃষ্টি সাধারণ ছুটি ঘোষণা, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ, ত্রাণ বিতরণ সহ প্রণোদনা ঘোষণা করেন।
সেনাবাহিনী,পুলিশ সহ নানা প্রশাসনিক কর্মকর্তাদের দেশের পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে মোতায়ন করা হয়।
এমনকি ঢাকা কিংবা বিদেশ ফেরত সবার জন্য চৌদ্দ দিন হোম করোন্টাইনে থাকার নির্দেশ দেয়।
সেই নির্দেশ পালন করতেই বঙ্গবন্ধুর সৈনিক, উপ-প্রচার সম্পাদক বাংলাদেশ তাঁতী লীগ ঢাকা জেলা উত্তর ও রানীশংকৈল ৮ নং নন্দুয়ার ইউনিয়নের সাবেক ছাত্রলীগ সভাপতি মোঃ তারেক আজিজ তার কর্মস্থল আশুলিয়া ঢাকা হতে ছুটি পাওয়ায় গত ২৪ /০৩/২০২০ ইং তারিখে নিজ গ্রাম বলিদ্বাড়া (রানীশংকৈল) এ আসেন।
তবে প্রশাসন ও সরকারের নির্দেশ পালন ও নিজ এলাকার মানুষকে নিরাপদে রাখতে তিনি স্বেচ্ছায় নিজ বাসায় অবস্থান করছেন।
অনেক নেতাকর্মী ও এলাকার জনগণ দেখা করতে চাইলেও তিনি সরাসরি নিষেধ করে দিচ্ছেন।
আইনের প্রতি এত সম্মান ও নিজ এলাকার মানুষজনের প্রতি অকৃত্রিম এই ভালোবাসায় তিনি সবার মুখে প্রশংসিত হয়েছেন।
আমাদের প্রতিনিধি এমন একটি তথ্য জানতে পারলে তাৎক্ষণিক ভাবে উনার সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, আপনারা যা শুনেছেন তা আসলেই সত্য আমি বাসায় আসছি ২৪ /০৩/২০২০ তারিখে তবে আমার এলাকার প্রতিবেশী জনগণের কথা ভেবে এবং সরকার ও প্রশাসনের আইনের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে আমি স্বেচ্ছায় হোম করোন্টাইনে আছি। আমার ভয় লাগে যদি আমি কোভিড-19 এ আক্রান্ত হয়ে থাকি তাহলে আমার সংস্পর্শে অনেকেই আক্রান্ত হয়ে যেতে পারে তাই প্রতিবেশী,দেশ ও জাতির কথা ভেবে সরকারের আইন মেনে চলচ্ছি,আপনারা সবাই দোয়া রাখবেন যেনো দ্রুত এই বন্দি জীবন থেকে মুক্তি সহ সুস্থ হয়ে থাকতে পারি এবং আপনারাও সবাই সতর্ক থাকুন এবং ঘরে অবস্থান করুন। অতীতে আমি আমার এলাকার জনগণের সেবায় ছিলাম এবং আগামীতেও অতি দ্রুত আমি আমার এলাকার অসহায় মানুষের পাশে খাদ্যদ্রব্য নিয়ে তাদের পাশে দাড়াঁনোর চেষ্টা করবো।
এই বিষয়ে তার প্রতিবেশী মোঃ রহিম এর কাছে জানতে চাইলে তিনি এই ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.